ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর সংক্ষিপ্ত জীবনী

0
1683
জন পড়েছেন
cristiano ronaldo

ফুটবল বিশ্বে সবচেয়ে আলোচিত ব্যক্তি কে ? সম্ভবত বিভিন্ন কারণে উত্তরটি হবে পর্তুগালের কিংবদন্তী ফুটবলার ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো । মেসি ভক্তরা এটা শুনে ক্ষেপে যেতে পারেন । তাই তাদের জন্য আমাদের বিশেষ উপহার মেসিকে নিয়ে আরও একটি লেখা , যা নিচের লিঙ্কে গিয়ে পড়ে আসতে পারেন । আপনার রাগ থাকবে না নিশ্চিত ।

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো রিয়াল মাদ্রিদ ফুটবল ক্লাবের হয়ে খেলেন এবং পাশাপাশি তিনি পর্তুগাল জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক । ছোট একটি শহরের এক মালির ছেলে ছিলেন রোনালদো । যিনি কঠোর অধ্যবসায় ও পরিশ্রমের মাধ্যমে আজ নিজেকে এমন এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে এসেছেন । যেখানে আরোহণ করা যেকোনো খেলোয়াড়ের সারা জীবনের স্বপ্ন থাকে ।

ছোট একটি শহরের এক মালির ছেলে ছিলেন রোনালদো ।

 

cristiano ronaldo

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো বর্তমান সময়ে সবচেয়ে পারিশ্রমিক প্রাপ্ত খেলোয়াড় । আজ তার আলিসান বাড়ি, কোটি টাকা দামের গাড়ি আছে । কিন্তু এই মানুষটি একটা সময়ে থাকতেন টিনের তৈরি একটি ছোট্ট বাড়িতে । খুব কম মানুষই জানে, এমনকি তার ভক্তদের মধ্যে অনেকেই হয়ত জানেন না, একটা সময়ে কতটা কষ্টের মধ্যে দিয়ে তিনি গেছেন ।

 

 

রোনালদোর পুরো পরিবার ছোট একটা টিনের ঘরে থাকতো ।

 

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ৫ই ফেব্রুয়ারি ১৯৮৫ সালে পর্তুগালের মাদেইরাতে জন্মগ্রহণ করেন । পুরো নাম ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো দস স্যান্তোস এভেইরো । তার বাবা জোসে দিনিস আভেইরো ছিলেন মালি, যিনি পার্ক ও মাঠের পরিচর্যা করে পরিবার চালাতেন । রোনালদোর পরিবারে সে ছাড়া বড় এক ভাই ও দুই বোন আছে । রোনালদোর পুরো পরিবার ছোট একটা টিনের ঘরে থাকতো ।

 

 

cristiano ronaldo as a kid

খুব অল্প বয়স থেকে ফুটবল শুরু তার । মাত্র আট বছর বয়সে প্রথমে “আন্দোরিনহা” নামে একটি অপেশাদার দলে তার ক্রীড়াজীবন শুরু হয়, যেখানে তার বাবা কাজ করতেন । রোনালদোর মা মারিয়া ডোলোরেস ছোটবেলায় তাকে ক্রাই বেবি বলে ডাকতেন, কারণ কোন ম্যাচ ভাল না খেললেই তিনি মাঠে বসে কান্নাকাটি করতেন । এখনো অবশ্য এই প্রচলনটি রয়ে গেছে, তার দলের অন্য খেলোয়াড়রা তাকে মজা করে এই নামে ডাকেন ।

 

রোনালদোর যখন ১৫ বছর বয়স তখন এক মেডিক্যাল পরীক্ষায় ধরা পড়ে, তার হার্টে সমস্যা আছে । তাকে বাঁচতে হলে ফুটবল খেলা ছেড়ে দিতে  

 

cristiano ronaldo

 

১৯৯৫ সালে, দশ বছর বয়সের মধ্যেই পর্তুগালে তার সুনাম ছড়াতে থাকে । মাদিয়েরার শীর্ষ দুটি দল “সিএস মারিতিমো”“সিডি ন্যাশিওনাল” তাকে পেতে উম্মুখ ছিল । অপেক্ষাকৃত বড় দল মারিতিমো আন্দোরিনহার ব্যবস্থাপকের সাথে একটি মিটিং-এ অংশ নিতে পারেননি । ফলে সিডি ন্যাশিওনাল রোনালদোকে হস্তগত করে । ন্যাশিওনালের হয়ে সে মৌসুমে শিরোপা জেতার পর স্পোর্টিং দলের সাথে তিনি চুক্তিবদ্ধ হন ।

বাবা মারা যাবার পর মা অন্যদের বাসায় কাজ করে সংসার চালাতেন ।

 

কিন্তু রোনালদোর যখন ১৫ বছর বয়স তখন এক মেডিক্যাল পরীক্ষায় ধরা পড়ে, তার হার্টে সমস্যা আছে । তাকে বাঁচতে হলে ফুটবল খেলা ছেড়ে দিতে হবে বলে ডাক্তার পরামর্শ দেন । তখন তার সামনে মাত্র দুইটি পথ খোলা ছিল- হয় ফুটবল ছেড়ে দাও, নাহয় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে হার্টের সার্জারি করাও । তার জন্য ফুটবল ছাড়াটাই বেশি কঠিন ছিল বলে সে মৃত্যুর কথা না ভেবে হার্টের সার্জারি করালেন এবং সৌভাগ্যক্রমে সার্জারি সফল হয় ।

cristiano ronaldo

 

তিনি আবার খেলায় ফিরে আসেন । এবার এক নতুন শক্তি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েন নিজের স্বপ্নকে সফল করতে । কিন্তু এরপরই আরও এক কঠিন বিপর্যয়ের মুখোমুখি হলেন তিনি । তার সবচেয়ে কাছের মানুষ, সবচেয়ে প্রিয়, বাবা অতিরিক্ত মদ খাওয়ার কারণে মারা যান । বাবার মৃত্যু রোনালদোকে অনেক বেশি ভেঙ্গে দেয় । কারণ, তার জীবনে বাবা এমন একজন বন্ধু ছিলেন যার সাথে সে সব কথা শেয়ার করতে পারত । সেই থেকে রোনালদোকে প্রতিজ্ঞা করেন যে তিনি নিজে কখনো মদ ছুঁয়ে দেখবেন না । এবং তিনি প্রতিজ্ঞা রেখেছেন ।

নেইমারের সংক্ষিপ্ত জীবনী

 

বাবা হঠাৎ মারা যাবার পর তাদের আর্থিক অবস্থা খুব খারাপ হতে লাগল । তখন তার মা অন্যদের বাসায় কাজ করে সংসার চালাতেন । তার একসাথে যে এতোগুলো সঙ্কট যাচ্ছে, রোনালদো তাতে বিন্দুমাত্র আশা হারাননি । সব সঙ্কটকে একপাশে সরিয়ে রেখে, নিজেকে সে কেবলমাত্র একটা জায়গাতেই কেন্দ্রিভুত করেন । একজন দক্ষ ফুটবলার হিসেবে নিজেকে তৈরি করার জন্য কঠোর পরিশ্রম করতে থাকেন । রোনালদো ১৭ বছর বয়সে পর্তুগাল স্পোর্টিং ক্লাবের হয়ে প্রথম ম্যাচ খেলেন । ম্যাচটি ছিল লিবান ক্লাবের সাথে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ক্লাবের ।

রোনালদোর মা মারিয়া ডোলোরেস ছোটবেলায় তাকে ক্রাই বেবি বলে ডাকতেন, কারণ কোন ম্যাচ ভাল না খেললেই তিনি মাঠে বসে কান্নাকাটি করতেন ।

 

 

cristiano ronaldo

এই ম্যাচে অ্যালেক্স ফার্গুসনের রোনালদোর খেলা দেখেই সাথে সাথে তাকে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে খেলার চুক্তি করেন । তখন রোনালদোকে নেওয়ার জন্য এই ক্লাবটি ১৭ মিলিয়ন ডলার খরচ করে । এটা ইংলিশ ফুটবল ক্লাবের ইতিহাসে কোন নতুন সম্ভাবনাময় খেলোয়াড়কে দেওয়া সবচেয়ে বড় পারিশ্রমিক । রোনালদো ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে আগস্ট ২০০৩ থেকে মে ২০০৯ পর্যন্ত খেলেন । এই সময়ে তিনি ১৯৬ ম্যাচে ৮৪টি গোল করেন ।

 

 

 

তারপর ২০০৯ সালে রিয়াল মাদ্রিদ ফুটবল ক্লাব ১৩২ মিলিয়ন ডলারের চুক্তিতে রোনালদোকে দোলে নেয় । রিয়াল মাদ্রিদের এই চুক্তি ছিল ২০১৫ সাল পর্যন্ত । তাই নতুন চুক্তিতে রিয়াল মাদ্রিদের সাথে ২০২১ সাল পর্যন্ত ২২৫ মিলিয়ন ডলারে আরেকটি চুক্তি হয় । নতুন এই চুক্তির মাধ্যমে পৃথিবীর সবচেয়ে দামী খেলোয়াড় হিসেবে রোনালদোর নাম উঠে গেছে ।

cristiano ronaldo

শুধু এমন না যে এই টাকা দিয়ে রোনালদো নিজের ব্যাংক ব্যাল্যান্স করছেন, সম্পদ বাড়াচ্ছেন । ররং তিনি এই টাকা থেকে একটা বড় অংশ খরচ করছেন সামাজিক উন্নয়নে । একবার তিনি ১০ মাসের এক শিশুকে বাঁচানোর জন্য প্রায় ৭৯ হাজার ডলার খরচ করেন । রোনালদো প্রতিবছর দুইবার রক্তদান করেন, তাই সে তার শরীরে কোন ট্যাটু করান না । ফুটবল খেলা ছাড়াও তিনি একজন ভালো বাস্কেট বল খেলোয়াড় ।

 

কী শিখলেন রোনালদোর জীবন থেকে?

 

অনেকেই ভাবছেন ওর এতো এতো টাকা ! কিন্তু একটিবার মূল্যায়ন করে দেখুন একজন মানুষ রোনালদোকে । নিজের স্বপ্ন পূরণে কতটা মরিয়া ছিলেন তিনি, কতটা পরিশ্রমী রোনালদো? কি দুঃসহ কঠিন সময় তারও ছিল?

বড় হতে হলে, সবার আগে একজন মানুষ হওয়ার চেষ্টা করুন ।

 

cristiano ronaldo

সবার আগে অন্য একটি ব্যাপারে একটু লক্ষ্য করুন । একজন মানুষ এমনি এমনি বড় হয় না । সবার আগে যেটা প্রয়োজন, তাকে মানবিক হতে হবে । সুন্দর ও পরিচ্ছন্ন মনের মানুষ । এটা কেন্দ্র । এখান থেকেই তৈরি হয়, স্বপ্ন, ইচ্ছাশক্তি, ভালোবাসা, সংকল্পের দৃঢ়টা, কঠোর পরিশ্রম করার মানসিকতা । বড় হতে হলে, সবার আগে একজন মানুষ হওয়ার চেষ্টা করুন ।

 

 

আপনার আশে পাশে যদি এমন কোন মানুষ থাকে যার এই লেখাটি পড়া উচিত বলে মনে করেন , তার সাথে অবশ্যই শেয়ার করবেন । অনুপ্রেরণামূলক গল্প, সফল ব্যক্তিদের জীবনী, সফলতার সূত্র এবং জীবনের নানান সমস্যা আপনাদের পাশে আছে পাই ফিঙ্গার্স মোটিভেশন । আর আগামী পর্বে আপনি কোন বিষয়ে লেখা চান কমেন্ট করে জানান । ভাল থাকুন ।

চাইলে এই গতি দানবকে নিয়ে আমাদের বানানো  ভিডিওটি দেখতে চলে আসুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে । ভালো লাগলে সাবস্ক্রাইব করতে ভুলবেন না যেনো ।

 

লিংক ঃ https://youtu.be/WWUW1n7_6mQ

Facebook Comments
SHARE